মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

উপজেলা নির্দেশিকা নবায়নের জন্য নিয়মিত উপজেলা মাঠ জরিপ এবং হালনাগাদ উপজেলা নির্দেশিকা প্রণয়ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখা। অনলাইন ফার্টিলাইজার রিকমেন্ডেশন এর তথ্য-উপাত্ত হালনাগাদকরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখা এবং উপকারভোগী সংস্থা, কৃষি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের নিকট সরবরাহ করা। কৃষকের নিকট থেকে সংগৃহিত মৃত্তিকা নমুনা স্থায়ী গবেষণাগারে প্রেরণ এবং সুষম সার ব্যবহার বিষয়ে কৃষকের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা । এমএসটিএল এর মাধ্যমে কৃষকের মৃত্তিকা নমুনা বিশ্লেষণ ও সার সুপারিশ কার্ড প্রদান কার্যক্রম জোরদার ও সমপ্রসারণ করা।  সুষম সার ব্যবহার বিষয়ে কৃষকের সচেতনতা বৃদ্ধি করা। সারের গুণগত মান নির্ণয়ে সার নমুনা বিশ্লেষণ সক্ষমতা আরও বৃদ্ধি করা। মৃত্তিকা ও সার ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কৃষক, কৃষি উদ্যোক্তা ও কৃষি কর্মিদের প্রশিক্ষণ অব্যাহত রাখা। আইসিটি ব্যবহার সম্প্রসারণের মাধ্যমে সেবা সহজিকরণ এবং অনলাইন সেবার মান বিস্তৃত করা।

 

২০১৮-১৯ অর্থবছরের সম্ভাব্য প্রধান অর্জনসমূহ:
 
 উপজেলা নির্দেশিকা হালনাগাদকরণের জন্য ২টি উপজেলার মাঠ জরিপ।
 জরিপকৃত উপজেলার জন্য হালনাগাদকৃত উপজেলা নির্দেশিকা প্রণয়ন-২টি।
 ইউনিয়ন ভিত্তিক ভূমি, মাটি ও সার সুপারিশ সুপারিশ সহায়িকা প্রণয়ন -৫টি ইউনিয়ন সহায়িকা।
 স্থায়ী গবেষণাগারে মৃত্তিকা নমুনা বিশ্লেষণের জন্য প্রেরণ-২৬০টি।
 উপজেলা নির্দেশিকার তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে সার সুপারিশ কার্ড প্রদান-৮০ টি। 
 ভ্রাম্যমান মৃত্তিকা পরীক্ষাগারে কৃষকের মৃত্তিকা নমুনা বিশ্লেষণ ও সার সুপারিশ কার্ড প্রদান-২০০টি।
 মৃত্তিকা ও সার ব্যবস্থাপণা বিষয়ক কৃষক, কৃষি উদ্যোক্তা ও কৃষি কর্মিদের প্রশিক্ষণ-প্রশিক্ষণার্থী সংখ্যা-৩০০ জন।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter